উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন মারা গেছেন ‘গুঞ্জন’ না কি সত্যি!

প্রকাশিত: এপ্রি ২৫, ২০২০ / ০৭:৩০অপরাহ্ণ
উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন মারা গেছেন ‘গুঞ্জন’ না কি সত্যি!

হংকং স্যাটেলাইট টেলিভিশন দাবি করছে, উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন মারা গেছেন। তবে এমন কোনো তথ্য এখন পর্যন্ত উত্তর কোরিয়ার পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়নি। তার শারীরিক পরিস্থিতি নিয়েও কোনো কিছু প্রকাশ করা হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে বিশ্ব মহলে তৈরি হয়েছে নানা গুঞ্জন। কেউ বলছেন, তিনি মারা গেছেন, আবার কেউ বলছেন তার অবস্থা বেশ গুরুতর। এরই মধ্যে চীনের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা পিয়ংইয়ং গেছেন।

ভিডিওটি দেখুন এখানে

কিমের পরিস্থিতি নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন লক্ষ করা গেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকেও। দেশটির প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা জানান, উত্তর কোরিয়ার নেতা স্বাস্থ্য নিয়ে যেসব খবর প্রকাশিত হচ্ছে তার ওপর যুক্তরাষ্ট্র নজর রখছে। তার মৃত্যু হয়েছে কি না তার কোনো নিশ্চয়তা এখন পর্যন্ত কোথাও পাওয়া যায়নি। কোনো প্রসিদ্ধ গণমাধ্যম এ বিয়ে খবরও প্রকাশ করেনি।

উত্তর কোরিয়ার নেতার মৃত্যুর গুঞ্জনের মধ্যেই আরেকটি খবর চাউর হয়েছে যে, তার অবস্থা গুরুতর হয়ে পড়ায় চিকিৎসার জন্য বিশেষজ্ঞ ডাক্তারসহ দেশটিতে একটি প্রতিনিধি দল পাঠিয়েছে চীন। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদনে এ দাবি করেছে।

গত কিছুদিন ধরেই বিশ্বগণমাধ্যমে বলা হচ্ছে, হৃদযন্ত্রে অস্ত্রোপচার হয়েছে কিমের। উত্তর কোরিয়া থেকে এ সম্পর্কিত কোনো তথ্য এখন পর্যন্ত প্রকাশ না হলেও স্থানীয় বিভিন্ন সূত্র দিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যম খবর প্রকাশ করেছে।

রয়টার্স বলছে, চীনের কাছে ঠিক কী বার্তা পাঠিয়েছে উত্তর কোরিয়া তা নিশ্চিত বলা যাচ্ছে না। চীনা কর্তৃপক্ষ থেকেও এ বিষয়ে কিছু বলা হয়নি।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির তত্ত্বাবধানে বৃহস্পতিবার উত্তর কোরিয়ার উদ্দেশে বেইজিং ছেড়ে যায় চিকিৎসকদের একটি প্রতিনিধিদল। তাদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন আন্তর্জাতিক লিয়াজোঁ কমিটির একজন সিনিয়র সদস্য।

গত ১৫ এপ্রিল উত্তর কোরিয়ায় কিমের দাদা ও দেশটির প্রতিষ্ঠাতা কিম ইল সুংয়ের জন্মদিনের অনুষ্ঠানে কিমকে দেখা যায়নি। এত গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানে তার অনুপুস্থিতি নিয়ে তৈরি হয় নানা জল্পনা-কল্পনা।

তার হৃৎপিণ্ডে অস্ত্রোপচারের খবর সর্বপ্রথম প্রকাশ করে মিডিয়া অনলাইন ডেইলি এনকে। তারা দাবি করে, নর্থ পিয়ংগাও প্রদেশে উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতার চিকিৎসা চলছে। তার অবস্থা বেশ আশঙ্কাজনক।