কাতার সরকার ১১ টি কোম্পানিকে শাস্তির আওতায় এনেছে যে কারণে

প্রকাশিত: এপ্রি ২৩, ২০২০ / ১২:৩৭পূর্বাহ্ণ
কাতার সরকার ১১ টি কোম্পানিকে শাস্তির আওতায় এনেছে যে কারণে

কাতার সরকার ১১ টি কোম্পানিকে শাস্তির আওতায় এনেছে। করোনা রোধে এক রুমের সর্বোচ্চ চারজন না রাখা, বাসে অর্ধেক যাত্রীরা না উঠানো, ৬ ঘন্টা কর্মদিবস না পালন করা, হ্যান্ড গ্লাভস, মাস্ক ও স্যানিটাইজার না দেয়া, সঠিক দূরত্ব বজায় না রাখা এবং অন্যান্য শ্রমিক অধিকার অমান্য করার কারনে। নতুন করে একটি হটলাইন নাম্বার দিয়েছে মন্ত্রণালয়। আপনি যদি মনে করেন যে আপনার কোম্পানি সরকারের আইন মানছে না তাহলে আপনি ৪০২৮০৬৬০ এই নাম্বারে কল করে অভিযোগ জানান।

ভিডিওটি দেখুন এখানে

কাতারে আজ মঙ্গলবার ২১-৪-২০২০ ইং তারিখে নতুন করে আরও ৫১৮ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্তর বিষয়টি নিশ্চিত করেছে কাতার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়,এখন পর্যন্ত মোট সংখ্যা ৬৫৩৩ এ পৌঁছেছে।এবং আর ৫৯ জন রোগী সুস্থ হওয়ার খবর ঘোষণা করেছে।এখন পর্যন্ত সর্বমোট সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন ৬১৪ জন।

কাতারের ভিজিট ভিসাধারীদের জন্য সুখবর।যারা করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট সমস্যা তথা ফ্লাইট বন্ধ থাকার কারণে ভিসার মেয়াদ শেষ হলেও কাতার ত্যাগ করতে পারতেছেন না, তাদের জন্য কাতারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের পক্ষ থেকে সু সংবাদ।

কাতারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রানালয় সোমবার এক ঘোষনায় জানিয়েছে যে, যারা ভিজিট বা ট্যুরিস্ট ভিসায় এসে কাতারে আটকা পড়েছেন, তাদেরকে ভিসা রিনিউ করতে হবেনা। এবং এজন্য কাতার সরকারকে কোন ফি প্রদান করতেও হবিনা। ফ্লাইট সার্ভিস পুণরায় চালু না হওয়া অবধি তারা এই সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।

কাতারের আরো খবর পড়ুন >>> কাতারে পাঁচ শতাধিক বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত

কাতারি ও অভিবাসী মিলিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের ছোট দেশ কাতারে প্রায় ২৫ লাখ মানুষের বসবাস, এরইমধ্যে সেখানে করোনায় আক্রান্ত হয়ে তিন বাংলাদেশিসহ মারা গেছেন সাত জন, কাতারে শুক্রবার (১৭ এপ্রিল) রেকর্ড ৫৬০ জনসহ ৪৬৬৩ জন মানুষের দেহে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে, আতঙ্কের বিষয় হল বাংলাদেশ দূতাবাসের সূত্রমতে পাঁচশত বেশি বাংলাদেশি আক্রান্ত হয়েছেন এ ভাইরাসে। ছোট দেশ হিসেবে এতো বেশি আক্রান্ত হওয়ায় আতঙ্কে আছেন প্রবাসীরা।

কাতার ফটিকছড়ি সমিতির সভাপতি আব্দুল আল মঞ্জুর বলেন, কাতারে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছেই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, এতো বেশি লোক আক্রান্ত হওয়ায় আমরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছি, আমরা দেশটিতে পরিবার নিয়ে বসবাস করি, তাই আরও বেশি আতঙ্কের মধ্যে আছি।

কাতার প্রবাসী চট্টগ্রাম সন্দ্বীপের মোহাম্মদ মোক্তাদের মাওলা বলেন, কাতারে তিনজন বাংলাদেশি করোনায় মারা যাওয়ায় চরম আতঙ্কে আছি। ১২ মার্চ থেকে কর্মসংস্থান বন্ধ থাকায় বাসায় অবস্থান করছি, কাতারে বসবাসরত প্রবাসীদের ভাইদের প্রতি অনুরোধ জীবনের নিরাপত্তার জন্য সকল বাংলাদেশিরা সচেতন হন।কাতার সরকার করোনাভাইরাসে কোন দেশের কতজন নাগরিক আক্রান্ত হয়েছেন তা না জানালেও বাংলাদেশ দূতাবাসের তথ্যমতে কাতারে ৫০০-এর বেশি প্রবাসী বাংলাদেশি এ ভাইরাসের আক্রান্ত হয়েছেন। কাতারে এ পর্যন্ত ৫৮.৩২৮ জন মানুষের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, কাতার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে ৪৬৪ জন মানুষ সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন।