দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত রেমিটেন্সে প্রণোদনা পেতে লাগবে না কাগজপত্র

দেড় লাখ টাকা রেমিটেন্সে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা পাওয়ার ক্ষেত্রে কোন ধরনের কাগজপত্র লাগবে না বলে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগ।

বুধবার (২০ নভেম্বর) রেমিটেন্স সম্পর্কিত প্রজ্ঞাপনটি জারি করে সব তফসিলি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগ। সেই সাথে প্রজ্ঞাপনে দেড় লাখ টাকার উপরে রেমিটেন্সের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিলের সময়সীমাও বাড়ানো হয়েছে।

এর আগে রেমিটেন্সের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিলের সময়সীমা পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে থাকলেও এখন তা বাড়িয়ে ১৫ কার্যদিবস করা হয়েছে।

বৈধ উপায়ে রেমিট্যান্স পাঠানোর বিপরীতে নগদ সহায়তা প্রদান প্রসঙ্গে জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, একজন প্রবাসীর রেমিট্যান্সের ওপর প্রতিবারে সর্বোচ্চ ১৫০০ মার্কিন ডলার বা সমমূল্যের অন্যান্য বৈদেশিক মুদ্রা বা এক লাখ ৫০ হাজার টাকার জন্য ২ শতাংশ হারে কোনো প্রকার কাগজপত্র ছাড়া প্রণোদনা সুবিধা প্রযোজ্য হবে।

অপরদিকে ১৫০০ মার্কিন ডলার বা সমমূল্যের অন্য বৈদেশিক মুদ্রা দেশে পাঠালে বিনা প্রশ্নে প্রণোদনা দেয়ার কথা বলা হলেও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স টাকায় রূপান্তরিত হয়ে আসায় ফের ডলারে রুপান্তর করা নিয়ে ব্যাপক জটিলতা সৃষ্টি হয়। এর ফলে বিদ্যমান ব্যবস্থায় টাকা থেকে ডলারের রূপান্তর করে রেমিটেন্সের নগদ প্রণোদনা হিসাব করতে ব্যাংক কর্মকর্তাদের অতিরিক্ত শ্রম দিতে হচ্ছে। সেইসাথে এক ব্যাংক থেকে অন্য ব্যাংকে প্রচলিত ডলার দর ভিন্ন ভিন্ন হিসাব করায় সুবিধাভোগীদের ক্ষতিগ্রস্ত ও ভোগান্তিতে পড়ার আশঙ্কাও ছিল।

তাই এ বিষয়গুলোকে সামনে রেখে নগদ প্রণোদনা হিসাব সঠিক ও সহজ করতে পাঠানো রেমিট্যান্সের সীমা ডলারের হিসাবের পরিবর্তে তার সমতুল্য টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দেড় লাখ টাকার বেশি রেমিটেন্সের নগদ প্রণোদনা পাওয়ার জন্য রেমিটেন্স প্রদানকারী ব্যাংকের শাখায় পাসপোর্টের কপি এবং বিদেশি নিয়োগদাতার দেয়া নিয়োগ পত্রের কপি জমা দিতে হবে। রেমিটেন্স প্রেরণকারী যদি ব্যবসায় নিয়োজিত হন তাহলে ব্যবসার লাইসেন্স দেখাতে হবে।

উল্লেখ্য, বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠানোর উৎসাহ বাড়াতে চলতি অর্থবছরের বাজেটে ২ শতাংশ হারে নগদ প্রণোদনা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সরকার। যার প্রেক্ষিতে বাজেটে তিন হাজার ষাট কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছিল।