কাশ্মীর ইস্যুতে পাক-ভারত উত্তেজনা : ‘পাকিস্তানের পাশে আছে ৫৮টি দেশ’

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দাবি করেছেন, কাশ্মীর ইস্যুতে ইসলামাবাদকে সমর্থন দিচ্ছে জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের ৫৮টি দেশ। তিনি বলছেন, কাশ্মীরে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়ে তাদের অধিকার রক্ষার দাবিতে ভারতের ওপর চাপ সৃষ্টিতে একমত এসব দেশ।

পাক প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি নিয়ে একটি টুইটার বার্তা দিয়েছেন। তাতে তিনি লিখেছেন, ‘মানবাধিকার পরিষদের ৫৮ দেশ পাকিস্তানের পক্ষে যোগ দেয়ায় তাদের সাধুবাদ জানাচ্ছি। ভারতের বলপ্রয়োগ বন্ধ করা, অবরোধ ও অন্যান্য নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া, কাশ্মীরিদের অধিকার রক্ষা ও সম্মান এবং বিতর্কিত কাশ্মীর ইস্যুকে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের মাধ্যমে সমাধানে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দাবি জোড়ালো হচ্ছে।’

ইমরান খান এ নিয়ে পরে আরেকটি টুইট করেন। তাতে তিনি লিখেছেন, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব, আন্তর্জআতক আইন এবং দ্বিপাক্ষিক চুক্তির মাধ্যমে কাশ্মীর সমস্যার একটি শান্তিপূর্ণ সমাধানে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) আহ্বানকে স্বাগত জানাচ্ছি।’

এর আগে গত মঙ্গলবার জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক কাউন্সিল (ইউএনএইচআরসি) জেনেভায় একটি বৈঠক করে। তবে ভারত পাকিস্তানের এমন অভিযোগ অস্বীকার করে বলছে, তারা জম্মু-কাশ্মীর ইস্যুতে নিজেদের মতো করে বিষয়টির ব্যাখ্যা দিচ্ছে। তারা কাশ্মীরকে ‘বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদের আখড়া’ বলছে।

ভারত আরও বলছে, জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে তারা আইনিভাবে পদক্ষেপ নেয়ায় পাকিস্তানের পায়ের তলার মাটি সরে গেছে। আন্তঃসীমান্ত সন্ত্রাসবাদ মদদ ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের জঘন্য রেকর্ডটি তাদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। বিকল্প কূটনীতির রূপ হিসেবে সীমান্তে সন্ত্রাসবাদী পন্থা অবলম্বন করছে তারা।

পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশির দাবি, ‘সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে জম্মু-কাশ্মীরকে এই গ্রহের সবচেয়ে বড় কারাগারে রূপান্তর করেছে ভারত। সেখানে মানবাধিকারকে পদদলিত করা হচ্ছে।’ তার কথার প্রেক্ষিতে ইউএনএইচআরসির বৈঠকে এসব মন্তব্য করে ভারত।