ওমানে চলছে ফ্রি ভিসার প্রবাসীদের ব্যাপকভাবে ধরপাকড়

ওমানে ফ্রি ভিসার শ্রমিকদের ধরপাকড় শুরু হয়েছে। এক সপ্তাহে ৮৮০ জন শ্রমিক গ্রেফতার করেছে রয়েল ওমান পুলিশ। গ্রেফতারদের মধ্যে ৪৪০ জন ফ্রি ভিসার লোক ‘ফ্রিল্যান্স কাজ’, স্পন্সরদের থেকে পালিয়ে কাজ করার দায়ে ৩০৬ জনকে এবং যথাযথ বৈধ কাগজপত্র ছাড়া দেশে থাকার জন্য অবশিষ্ট ১৬৬ জনকে গ্রেফতার করেছে।

মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, ‘রয়াল ওমান পুলিশ ও অন্যান্য কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় অভিযান চালানো হচ্ছে, মূলত শ্রম বাজারকে পরিস্কার করার জন্য।

সাপ্তাহিক তথ্য অনুযায়ী, গত সপ্তাহে মোট ৪১০ কর্মীকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। বেশিরভাগ শ্রমিক গ্রেফতার হয়েছে ওমানে বসবাসের অনুমতিসহ শ্রম আইনের বিভিন্ন বিধান লঙ্ঘনের জন্য।’ গ্রেফতার হওয়া ক্রমবর্ধমান সংখ্যা সম্পর্কে মন্তব্য করে সরকারি কর্মকর্তা জানান, ‘এত গ্রেফতারের পরেও বিপুল সংখ্যক শ্রমিক এখনও যথাযথ কাজের অনুমতি ছাড়া চাকরি করছে। ছত্রভঙ্গের সময় ধরা পড়ে শতাধিক শ্রমিক, যারা স্পন্সর এর অধীনে কাজ করছিলেন না।’

ফ্রি ভিসার ব্যাপারে শ্রম আইনের উদ্ধৃতি দিয়ে এক কর্মকর্তা বলেন, ‘একজন প্রবাসী শ্রমিক অথবা কর্মচারী যিনি ওমানের পরিচালক সম্পর্কিত কোন লাইসেন্স ছাড়াই কাজ করেন অথবা নিয়োগকর্তা ব্যতীত যে কোন নিয়োগকর্তার সাথে সুলতানতে আনতে লাইসেন্স পাওয়ার জন্য অন্য কোন নিয়োগকর্তার সাথে কাজ করেন, তাকে শাস্তি দেওয়া হবে। অর্থাৎ কেউ যদি কোনো ওমানির সাথে চুক্তি করে ফ্রি ভিসা দিয়ে কোনো ব্যক্তিকে ওমান এনে অন্য কোথাও কাজ করায়, তাহলে এর জন্য এক মাসেরও অধিক কারাদণ্ড এবং ১০০০ ওমানি রিয়েল জরিমানা করা হবে।’

তথাকথিত ‘ফ্রিল্যান্স’ ফ্রি ভিসার শ্রমিকদের কথা উল্লেখ করে কর্মকর্তা বলেন, ‘সরকার কর্তৃক জারি করা ‘ফ্রি ভিসা’ নামে কিছুই নেই। “নিয়োগকর্তারা তাদের দেশে আনতে অনুমতি দেওয়া ছাড়া অন্য একজন নিয়োগকর্তার অধীনে কাজ করার অনুমতি দেওয়া হয় না। ২০০৯ পর্যন্ত একজন শ্রমিক তার মালিককে কমিশন দিয়ে অন্য জায়গায় কাজ করতে পারলেও এখন তা সম্পূর্ণ অবৈধ ঘোষণা করেছে ওমান সরকার।