সৌদিতে কফিলের শারীরিক নির্যাতনে প্রবাসী বাংলাদেশীর করুণ মৃত্যু

জীবিকার তাড়নায় এখন অনেকেই পাড়ি জমায় দেশের বাইরে। তবে সেখনে গিয়েও প্রবাসীদের এমন কিছু কাজ করতে হয় যা আসলে তাদের জন্য অনেক বিপদ জনক। আবার প্রায়ই নতুন নতুন নিয়মের মাঝে অনেকেই বিপাকে পরে যান। অনেক সময় হয় মৃত্যুও যেমনটি এই ঘটনা।



সৌদি আরবের মক্কা নগরীর এসপান শামিয়া নামক জায়গায় নুর মোহাম্মদ প্রকাশ-নুরু ড্রাইভার নামে এক প্রবাসী বাংলাদেশীর করুণ মৃত্যুর খবর জানা গিয়েছে । বেতনের বকেয়া টাকা দাবির অপরাধে মালিক পক্ষের শারীরিক নির্যাতনের ফলে এই প্রবাসীর মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে তার প্রিয়জনরা ।

নূর মোহাম্মদ কাজ করতেন সৌদি মালিকের হাউজ ড্রাইভার হিসেবে । গত দু’বছর ধরে প্রবাসী নূর মোহাম্মদের বেতন বকেয়া পড়ে যায় । বারবার বেতন চেয়েও নিরাশ হতে হয় নূর মোহাম্মদকে । শেষ অব্দি ঘাম ঝরানো ন্যায্য পাওনা চাইতে গিয়ে প্রাণটাও গেল প্রবাসীর ।

নিহত নুরু মোহাম্মদ প্রকাশ-নুর ড্রাইভার (৫৫) চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলাধীন এওচিঁয়া ইউনিয়নের পশ্চিম গাটিডেঙ্গা গ্রামের মেহেদি পাড়া নিবাসী-মরহুম আবদুল জলিলের পুত্র।

জানাযায়, গত ৫-দিন আগে মক্কা নগরীর একটি সরকারী হাসপাতালে নূর মোহাম্মদকে রেখে চলে যায় তার সৌদি কফিল । হাসপাতালে দু’দিন চিকসার পর ৭ জানুয়ারি চিকিৎসাধীন অবস্থায় এই প্রবাসী হাসপাতালে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন ।

পাওনা টাকা চাইবার অপরাধে সৌদি কপিল একমাস যাবৎ ঘরে আটকে রেখে শারীরিকভাবে নির্যাতন করে প্রবাসী নূর মোহাম্মদকে হত্যা করেছে এই অভিযোগ নিহতের পরিবারের ।

নিহতের ছোট ভাই ইউছুফ আলী জানান, গত দুবছরের বকেয়া বেতন চাওয়াটাই আমার ভাইয়ের জন্য কাল হয়েছে। বিদেশের বুকে প্রবাসী ভাই হত্যার সুষ্ঠু বিচার পেতে তিনি সৌদি আরবস্থ বাংলদেশ দূতাবাসের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেছেন ।