নিজের অক্ষমতা ঢাকতে নববধূকে ধর্ষণ করিয়ে ভিডিও ধারণ করলো স্বামী!

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে স্বামীর বিরুদ্ধে ধর্ষণ সহায়তার অভিযোগ করেছেন এক নববধূ।পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত আনুমানিক ১০টার দিকে শ্রীনগর উপজেলার পশ্চিম কোলাপাড়া গ্রামে স্বামীর সহযোগিতায় ওই গৃহবধূকে হাত-পা বেঁধে ধর্ষণ করে মোবাইলে ভিডিওদৃশ্য ধারণ করা হয়।



ঘটনার বিবরণে জানা যায়, প্রায় তিন মাস আগে উপজেলার কোলাপাড়া গ্রামের মৃত বাছের শেখের ছেলে আজিজুলের সাথে বিয়ে হয় একই উপজেলার শ্যামসিদ্ধি গ্রামের ওই নারীর। স্বামী আজিজুলের শারীরিক অক্ষমতার কারণে বিয়ের পর থেকে এ পর্যন্ত তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কোনো শারীরিক সম্পর্ক হয়নি।

এক পর্যায়ে স্বামীর শারীরিক অক্ষমতার কারণে সংসার না করার সিদ্ধান্ত জানিয়ে বিয়ের সময় দেয়া যৌতুকের টাকা ও অন্যান্য উপঢৌকন ফিরিয়ে দিতে বলেন ওই নববধূ। স্বামী আজিজুল যৌতুক ফিরিয়ে না দেয়া ও তার শারীরিক অক্ষমতা বাইরে যাতে প্রকাশ না হয় সে বিষয়ে ভিন্ন কৌশলের পরামর্শ নেন তার আপন মামা সিদ্দিকের কাছে।

সিদ্দিকের পরামর্শ অনুযায়ী আজিজুল তার আপন খালা ও খালাতো ভাই নুরুল ইসলামকে কোলাপাড়ায় তার নিজ বাড়ির একটি ঘরে রাত্রি যাপন করান। এক পর্যায়ে রাত ১০টার দিকে নুরুল ইসলামের মা মাথা ব্যাথার মলম নেওয়ার কৌশলে ঘুমন্ত আজিজুল ও তার স্ত্রীকে ঘরের দরজা খুলতে বলে।

পরামর্শ ও পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী আজিজুল তার নিজের ঘরের দরজা খুলে দেয়। ঘরের ভিতর ঢুকে নুরুল ইসলামের মা, নুরুল ইসলাম ও আজিজুল সবাই মিলে ওই নারীকে হাত-পা বেঁধে ফেলে এবং মুখে কাপড় গুঁজে দেয়। এরপর নুরুল ইসলাম, ধর্ষিতার স্বামী আজিজুল ও নুরুল ইসলামের মা ব্লেড দিয়ে ওই নারীর শরীরের বিভিন্ন অংশের কাপড় কেটে তাকে উলঙ্গ করে ফেলে বাইরে বেরিয়ে যায়। এর পর নুরুল ইসলাম হাত-পা বাঁধা অবস্থায় তাকে ধর্ষণ করে। এ সময় ধর্ষিতার স্বামী আজিজুল এই ধর্ষণের দৃশ্য মোবাইল ফোনে ভিডিও করতে থাকে।এ ঘটনায় অভিযুক্তদের নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন নির্যাতিতা নববধূ।