নৌকায় ভোট চাওয়া ওসির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ

প্রকাশ্যে অনুষ্ঠানে এলাকাবাসীকে নৌকায় ভোট দেওয়ার আহ্বান জানানোর অভিযোগে সাতক্ষীরা কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মারুফ আহম্মেদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা।

শুক্রবার সন্ধ্যায় জেলা পুলিশ সুপারকে এ নির্দেশ দেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল।
বৃহস্পতিবার বিকালে কলারোয়া উপজেলার জিকেএমকে পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন ওসি। সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) আসনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মুস্তফা লুৎফুল্লাহ উপস্থিত ছিলেন। বক্তব্যে এলাকাবাসীকে নৌকার প্রার্থীকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করার আহ্বান জানান ওসি। তার সেই বক্তব্যর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এরপরই শুরু হয় সমালোচনা। সরকারি কর্মকর্তা হয়ে নৌকায় ভোট চেয়ে সরকারি চাকরি বিধি ও নির্বাচনী আইন লঙ্ঘনে অভিযুক্ত হন ওসি।

পুলিশ সদরদপ্তরও বলছে, তাদের বাহিনীর কারো এভাবে প্রকাশ্যে কোনো রাজনৈতিক দলের পক্ষ নেওয়ার সুযোগ নেই। অভিযোগটি খতিয়ে দেখার আশ্বাসও নেওয়া হয়েছে।

সাবেক পুলিশ মহাপরিদর্শক নূরুল হুদা ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘ওসি যেটা করেছেন, সেটা তার চাকরিবিধির বিরোধী। সরকারি কর্মকর্তাদের আচরণবিধিতেই বলা আছে। কোনোভাবেই তারা রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হতে পারবেন না।’

পুলিশ সদরদপ্তরের উপমহাপরিদর্শক (গণমাধ্যম) এস এম রুহুল আমিন ঢাকা টাইমসকে বলেন, ‘এটা তিনি করতে পারেন না। আমরা এ ব্যাপারে খোঁজ খবর নিয়ে দেখব।’

ওসি মারুফ অবশ্য ঢাকা টাইমসের কাছে দাবি করেছেন, তার বক্তব্য বিকৃত করে নৌকা মার্কায় ভোট চাওয়ার কথা ঢুকানো হয়েছে।

ওসি সেদিন যা বলেছিলেন

সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, ইভিএম নিয়ে এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছিলেন ওসি মারুফ।
সাতক্ষীরা-২ আসনে এবার ভোট নেওয়া হবে ইভিএমে। এ বিষয়ে এক অনুষ্ঠানে ওসি বলেন, ‘স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তিকে আপনারা ভোট দেবেন, নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন।’

ওসি তার আগে আওয়ামী লীগ নেতাদের রাখা বক্তব্যের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘এতক্ষণ আমাদের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ বক্তৃতা দিয়ে গেছেন। আপনাদেরকে আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনের মেসেজ পৌঁছে দিয়েছেন। তারা বলেছেন, কোন মার্কায় ভোট দিতে হবে। আজকে আমি প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটা কথা বলতে চাই, স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তিকে আপনারা ভোট দেবেন, নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন।’

‘কারণ এই সরকার যত উন্নয়ন করেছে, এই সরকার যেভাবে জনগণের পাশে থেকেছে, আগামীতেও যেনো আপনাদের পাশে থেকে সকল বাধা বিপত্তি দূর করে কলারোয়াকে একটি মডেল জেলা হিসেবে উন্নীত করে। এখানকার মানুষ যেনো গর্ব করে বলতে পারে যে, আমি কলারোয়ার অধিবাসী, আমি সাতক্ষীরার অধিবাসী।’।

ওসির এমন বক্তব্যের পরই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ এলো।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল জানান, কলারোয়া থানার ওসি মারুফ আহম্মেদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। জেলা পুলিশ সুপার শিগগির তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন।

সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মেরিনা আক্তার ঢাকাটাইমসকে বলেন, একজন পুলিশ কর্মকর্তার কাছ থেকে এধরণের বক্তব্য কাম্য নয়। তিনি ওই অনুষ্ঠানে সুধুমাত্র আইনশৃঙ্খলা বিষয়ে বক্তব্য দিতে পারতেন। এ বিষয়টি উর্ধতন কর্মকর্তার অবগত হয়েছেন বলেও জানান তিনি।

ওসি মারুফ আহমেদ ২০১৫সালে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ (কেএমপি)’র সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় ওসি ছিলেন। এরপর খুলনা জেলার পাইকগাছা থানা, সাতক্ষারীরা সদর থানার ওসির দায়িত্ব পালনের পর বর্তমানে সাতক্ষীরার কলারোয়া থানার ওসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তার গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জ জেলায়।